স্ত্রী ও শাশুড়ি দেয়া আগুনে অগ্নিদগ্ধ প্রবাসী স্বামী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু  

নেত্রকোনা প্রতিনিধি:
মদনে স্ত্রীর দেয়া আগুনে অগ্নিদগ্ধ আহত বিদেশ ফেরত স্বামী এখলাছ উদ্দিন (৩৫) ৫ দিন মৃত্যু সাথে পাঞ্জালরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মৃত্যু বরণ করেছে।
স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ৬ বছর আগে পারিবারিক ভাবে মদন উপজেলার সুতিয়ারপাড় গ্রামের খাইরুল ইসলামের মেয়ে  মুক্তা আক্তার(২৬) ও কেন্দুয়া উপজেলার পাছহার গ্রামের আমজাদ হোসেনের ছেলে এখলাছ উদ্দিনের বিবাহ হয়। বিয়ের কিছুদিন পরেই তিনি মালেয়েশিয়া চলে যান। সেখান থেকে আবার সৌদি আরব যান। বিদেশ থাকা অবস্থায় তার উপার্জিত অর্থ স্ত্রীর কাছে পাঠাতেন।
সম্প্রতি দেশে ফিরে স্ত্রীর নিকট জমানো টাকা পয়সার হিসেব চাইলে পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়। গত ১২ নভেম্বর রাতে স্ত্রী মুক্তা আক্তার ফোন করে স্বামীকে শ্বশুর বাড়িতে ডেকে আনেন। রাতে খাবার খেয়ে স্ত্রীর সঙ্গে ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। পরে গভীর রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামী এখলাছের শরীরে ধার্য‍্য পদার্থ ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন স্ত্রী।
এ সময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে এখলাছকে উদ্ধার করে মদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার এখলাছের চাচাতো ভাই কসিম উদ্দিন স্ত্রী মুক্তা আক্তারকে ১নং আসামি করে শ্বশুর ও শাশুড়িসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মদন থানায় মামলা দায়ের করেন।
মদন থানার ওসি মোহাম্মদ তাওহীদুর রহমান জানান, অগ্নিদগ্ধের ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। অগ্নিদগ্ধ এখলাছের মৃত‍্যুতে এই মামলাটি হত‍্যা মামলায় রূপান্তরিত হবে।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বিষয়: * আগুন * ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল * মৃত্যু
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ