আজমত উল্লা খান ঢাকা-১৭ আসনের প্রার্থি অথবা মন্ত্রী হওয়ার গুঞ্জণ

সদরুল আইনঃ
সম্প্রতি শেষ হয়েছে গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আজমত উল্লা খান ১৬ হাজারেরও বেশি ভোটে প্রতীকী প্রার্থী জায়েদা খাতুনের কাছে পরাজিত হয়েছেন।
 জায়েদা খাতুন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এবং আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত নেতা জাহাঙ্গীর আলমের মা। প্রথমবার বহিস্কৃত হওয়ার আগে জাহাঙ্গীর আলম গাজীপুর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পদকের দায়িত্বে ছিলেন।
 সে সময়ে তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তি করে বক্তব্য দেওয়ার কারণে বহিষ্কৃত হয়েছিলেন। পরে সিটি করপোরেশনের মেয়র পদ থেকেও বহিষ্কৃত হন। সেই থেকেই গাজীপুর আওয়ামী লীগ দ্বিধা-বিভক্ত হয়ে পড়ে।
 সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয়ে গাজীপুর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দ্বিধা-বিভক্তিকেই মূল কারণ হিসেবে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।
সেই সঙ্গে পর পর দুই দফায় আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান ভোটে পরাজিত হওয়ার কারণে তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যাচ্ছে বলেও মনে করেছিলেন কেউ কেউ।
 আজমত উল্লা একজন ত্যাগী, পরীক্ষিত নেতা। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। একজন শিক্ষিত সজ্জন ব্যক্তি, আদর্শের প্রশ্নে কখনো আপোষ করেননি দলের এই দুঃসময়ের সারথী। তাই এমন একজন নেতার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার কি শেষ হয়ে গেল? -এমন প্রশ্নই ওঠেছিল রাজনৈতিক অঙ্গনে।
কিন্তু গতকাল রোববার (২৮ মে) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আজমত উল্লা খানের এক সৌজন্য সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়।
সাক্ষাতে তিনি গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক দুর্বলতা এবং নির্বাচনে পরাজয়ের কারণ প্রধানমন্ত্রীর কাছে সবিস্তরে করেন তুলে ধরেন। সাক্ষাৎ শেষে তিনি তার নিজের লেখা দুইটি বই ‘রাজনীতির মহাকবি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ এবং ‘বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বগুণ : আদর্শ ব্যক্তি ও জাতি গঠনে অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত’- শীর্ষক দুইটি বই প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন।
এই সাক্ষাতের পর থেকেই আলাপ-আলোচনা ভিন্ন দিকে মোড় নিয়েছে। গুঞ্জন ছড়িয়েছে, আজমত উল্লা খানকে ঢাকা-১৭ আসনের উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে। ওই আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আকবর হোসেন পাঠান (নায়ক ফারুক) গত ১৫ মে থাইল্যান্ডের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করায় আসনটি শূন্য হয়। ওই শূন্য আসনে আজমত উল্লাকে মনোনয়ন দেওয়া হতে পারে বলেও বলছেন কেউ কেউ।
আবার কেউ কেউ বলছেন, নির্বাচনকালীন সরকারে মন্ত্রীর দায়িত্বও পেতে পারেন আজমত উল্লা। কেননা, প্রধানমন্ত্রী যার ওপর ক্ষুব্ধ হন, তাকে যেমন শাস্তি দেন- আবার যার ওপর সন্তুষ্ট ও যিনি ধৈর্য ধারণ করেন- তাকে একই সঙ্গে সব দেন, পুরস্কৃত করেন। গত ১৫ বছরে বহুজন এর উদাহরণ।
গাজীপুরে মেয়র পদে আজমতকে হারানোয়, প্রধানমন্ত্রী ভীষণ ক্ষুব্ধ হয়েছেন। তিনি আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা জাহাঙ্গীর ভোটকে ঘিরে যে আচরণ করেছেন- সে সম্পর্কে ক্ষুব্ধ হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। গাজীপুরের আওয়ামী লীগের রাজনীতি আজমত উল্লাকে নিয়ে যে খেলাধুলায় মেতেছে- সে আজমত উল্লাকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ভাবছেন আরও ওপরে।
তবে এসব বিষয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, গাজীপুর সিটি নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর যে নাটকীয় পরাজয় হয়েছে, তাতে আজমত উল্লা ব্যর্থ বলেই প্রতীয়মান হয়েছেন।
কেননা তিনি গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। দলের সভাপতি হিসেবে এলাকায় তার একটা নিয়ন্ত্রণ, তার একটা জনপ্রিয়তা- তাকে এই নির্বাচনে জয়ী করে তুলতে পারতো। সেখানে তিনি পুরোপুরি ব্যর্থ।
একথা সত্য যে, দলের দুঃসময়ে তিনি অবদান রেখেছেন, দলের জন্য নিবেদিত ছিলেন। সেই পরিপ্রেক্ষিতে তার প্রাপ্তির বিষয়টি নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। তবে যে সমস্ত গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে, তা ফলপ্রসূ হতে হলে কেবলই সময়ের অপেক্ষা। সময় বলে দিবে কি হবে আজমত উল্লা’র ভাগ্যে।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বিষয়: * আজমত উল্লা খান ঢাকা-১৭ আসনের প্রার্থি * মন্ত্রী হওয়ার গুঞ্জণ