শান্তিগঞ্জে চুরের উৎপাত, প্রতিকার চান এলাকাবাসী

জামিউল ইসলাম তুরান,  শান্তিগঞ্জ প্রতিনিধি :
শান্তিগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নে হঠাৎ বেড়ে গেছে চোরের উৎপাত। গেল দুই সপ্তাহে ইউনিয়নের একাধিক গ্রামে গভীর রাতে বাড়ির সিঁদ কেটে ঘটেছে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনা। এরমধ্যে ইউনিয়নের শত্রুমর্দন গ্রামের বিভিন্ন পাড়ায় অন্তত ১০টি ঘরে এসব চুরির ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ ইউনিয়নের চন্দ্রপুর (কোনারবাড়ি) গ্রামে একই রাতে দু’টি ঘরে চুরির ঘটনা ঘটেছে।
চুরি যাওয়া এসব ঘটনা পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বাড়ির সিঁদ কেটে ঘরে প্রবেশ করে চোর চক্র। এরপর ঘর থেকে মোবাইল ফোন, স্বর্ণালঙ্কার, নগদ টাকাসহ গরু এমনকি সিএনজি চালিত অটোরিকশা চুরি করে নিয়েছে চোরেরা। ক্ষতিগ্রস্থরা জানান, মধ্যরাত থেকে শেষরাতের মধ্যে কোনো ঘরের টিন কেটে, কোনো ঘরে সিঁদ কেটে আবার কোনো ঘরে তালা ভেঙে চুরি করে চোরেরা। তারা আরোও জানান, রাতের আঁধারে চোরেরা প্রথমেই বাইরে জ্বালানো বাল্ব বন্ধ করে অথবা নষ্ট করে দেয়। পরে সুবিধামতো সময়ে চুরি করে কেউ কিছু টের পাওয়ার আগেই পালিয়ে যায়। নিয়মিত চুরির এসব ঘটনায় স্বস্তিতে নেই শত্রুমর্দন, চন্দ্রপুর গ্রামবাসীসহ পুরো ইউনিয়নবাসী।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত দুই সপ্তাহে শত্রুমর্দন গ্রামের ব্রাহ্মণপাড়ার মৃত অর্জুন চন্দের ছেলে অবিনাশ চন্দ, তার ভাই অলক চন্দ, বারিন্দ্র চন্দের ছেলে বাপ্টু চন্দ, একই গ্রামের মুসলিম পাড়ার আউয়াল উদ্দিন, সূত্রধরপাড়ার অর্জুন সূত্রধর ও সম্ভু সূত্রধরের ছেলে ভূষণ সূত্রধর, একই পাড়ার অভি সূত্রধরের ঘরে চুরি হয়েছে। প্রত্যেকের ঘর থেকে নগদ টাকা, মোবাইল ফোন ও স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে গেছে চোরেরা। এছাড়াও নিদনপুর গ্রামের সাগর বিশ্বাস নামের এক কৃষকের একটি গরু চুরি হয়েছে বলে জানা যায়। এরআগে গত রোজায় শত্রুমর্দন বন্দেরবাড়ি এলাকা থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধী ফিরোজ আলীর ঘর থেকে ৫টি গরু চুরি হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
এছাড়া, ইউনিয়নের বিভিন্ন জায়গা থেকে চোরেরা সিএনজি চালিত অটোরিকশাও চুরি করে যাচ্ছে নিয়মিত। গেল রমজান মাসে রাতের আঁধারে ইউনিয়নের নবীনগর গ্রামের সামন থেকে তৈয়ব আলীর ছেলে সাগর মিয়ার কন্ট্রাকে আনা সিএনজি অটোরিকশা ও হাজিবাড়ির রাস্তা থেকে সূর্জা মিয়ার ছেলে নিজাম মিয়ার সিএনজি অটোরিকশা (সুনামগঞ্জ-থ ১১-৩০৩২) চুরি হয়।
গত সোমবার দিবাগত রাত ২টার দিকে সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কের পাগলা বড় জামে মসজিদের রাস্তার মুখ থেকে মৃত মন্নার মিয়ার ছেলে রহিম আলীর নতুন ক্রয় করা সিএনজি অটোরিকশাটি নিয়ে যায় চোরেরা, যার নাম্বার সুনামগঞ্জ-ত ১১-০৫৪৮। চন্দ্রপুর কোনারবাড়ির তফজ্জুল মিয়ার বাড়ি থেকে সিঁদ কেটে ঘরে ঢুকে ৩টি মোবাইল ফোন ও নগদ ৫১ হাজার টাকা নিয়ে যায় চোরচক্র।
তফজ্জুল মিয়া বলেন, গত বৃহস্পতিবার রাতে আমার ঘরে সিঁদ কেটে চোর প্রবেশ করে। একটি আইফোন, দুটি স্মার্টফোন ও নগদ ৫১ হাজর টাকা নিয়ে যায় চোরেরা। আমরা চেষ্টা করে আইফোনের খবর বের করি। পুলিশ গোবিন্দগঞ্জের একটি দোকান থেকে তা উদ্ধার করেছে।
অর্জুন চন্দ, ভূষণ সূত্রধর বলেন, আমাদের ঘর থেকে মোট আড়াই ভরি স্বর্ণ ও নগদ ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা নিয়ে যায় চোরেরা। আমাদের একেবারেই নিঃস্ব করে নিয়ে গেছে।
সিএনজি অটোরিকশাচালক রহিম আলী বলেন, আমি ৭/৮দিন আগে গাড়িটি কিনেছিলাম। বৃষ্টির জন্য বাড়ির সামনে রেখে বাড়িতে যাওয়ার কিছু সময়ের মধ্যেই চুরি হয়ে যায় আমার গাড়িটি। এখনো খুঁজাখুঁজি করছি। এঘটনায়  মামলা করবো।
প্রতিবন্ধী ফিরোজ আলী জানান, গত ২৩ রমজানে তার ৫টি গরু চুরি হয়েছে। তার ঘর থেকে রাতে তা নিয়ে যায় চোরেরা।
এদিকে, চোর চক্রকে খুঁজে বের করতে বিশেষভাবে কাজ করে যাচ্ছে পুলিশ প্রশাসন। সর্বশেষ গেল সোমবার রাত সাড়ে ৯ টায় চুরির উৎপাত প্রতিরোধ করতে ইউনিয়নের শত্রুমর্দন গ্রামে ওপেন হাউজ ডে করেছে শান্তিগঞ্জ থানা পুলিশ। সভায় চুরি ও মাদক বন্ধে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের কথা বলেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. খালেদ চৌধুরী। তিনি বলেন, আমরা চুরি বন্ধে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে আছি। আমাদের টিম কৌশলে চোরদের ধরতে কাজ করছে। খুব শিগগির চোর চক্রের মূলোৎপাটন করবো। সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

বিষয়: * প্রতিকার চান এলাকাবাসী * শান্তিগঞ্জে চুরের উৎপাত
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ