বঙ্গবন্ধুর কলকাতার জীবন নিয়ে জীবন নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করছেন গৌতম ঘোষ

 

 

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনে একটিগুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় হয়ে আছে  ভারতেরপশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের কলকাতা শহর। সেখানে তিনি পড়াশুনা করেছেন, করেছেন রাজনীতিও। বঙ্গবন্ধুর কলকাতার সেই জীবন নিয়ে যৌথভাবে একটিপ্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করছে ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ এবং কলকাতায় বাংলাদেশউপহাইকমিশন।

‘কলকাতায় বঙ্গবন্ধু’ নামের সেই প্রামাণ্যচিত্র তৈরি করছেন কলকাতার প্রখ্যাত চলচ্চিত্রকার গৌতম ঘোষ। যা আগামী জুন মাসে মুক্তি দেয়া হবে। শুক্রবার বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে একসংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কেআব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, পরিচালক গৌতম ঘোষসহ অন্যান্যরা।

সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই কাজটিকে দুইদেশের বন্ধুত্বের উদাহরণ হিসেবে উপস্থাপন করেন। এছাড়া এই কাজে সম্পৃক্ত সবাইকেধন্যবাদ জানান তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর জীবনেরবড় একটি অংশ কাটিয়েছেন কলকাতায়। তারপড়াশোন,জীবন যাপন, সে সময়ের রাজনৈতিক পরিস্থিতি উঠে আসবেএই তথ্য চিত্রে।

লিখিত বক্তব্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমবলেন,যৌথ উদ্যোগে বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজবুর রহমানেরকলকাতা জীবনকে উপজীব্য করে ‘কলকাতায় বঙ্গবন্ধু’ নামে একটি তথ্যচিত্র নির্মাণেরউদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

গত ১৯ মার্চ এই তথ্যচিত্র নির্মাণ সংক্রান্ত একটিসমঝোতা স্মারক কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনে স্বাক্ষর হয়। প্রায় ৩০ মিনিটের এইতথ্যচিত্রটি কলকাতা এবং বাংলাদেশে শুটিং শেষে আগামী জুনের মধ্যে নির্মাণকাজসমাপ্তের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এর আগে গত ৪ এপ্রিল বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িতকলকাতার মওলানা আজাদ কলেজ (যেটি পূর্বে ইসলামিয়া কলেজ নামে পরিচত ছিল) সেখানে এইতথ্যচিত্র নির্মাণের প্রাথমিক কাজ শুরু হয়।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ১৯৪৫-৪৬শিক্ষাবর্ষে ইসলামিয়া কলেজে অধ্যয়ন করেছেন এবং সে সময় তিনি কলেজ ছাত্র সংসদেরসাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

তিনি সে সময় সরকারি বেকার হোস্টেলের ২৪ নম্বর রুমেআবাসিক ছাত্র ছিলেন। যেটি এখন বঙ্গবন্ধু স্মৃতি কক্ষ হিসেবে সংরক্ষিত আছে। কলকাতারসঙ্গে বঙ্গবন্ধুর অসংখ্য স্মৃতি জড়িত, যার বেশ কিছু অংশআমরা বঙ্গবন্ধুর নিজের লেখা অসমাপ্ত আত্মজীবনী পড়ে জানতে পারি।

বঙ্গবন্ধু কখনো চিকিৎসার প্রয়োজনে, কখনো লেখাপাড়ার জন্য, আবার রাজনৈতিক নেতা হিসেবেওবহুবার কলকাতায় আসা-যাওয়া করেছেন। সে অভিজ্ঞতা তাকে একজন অসামান্য রাজনৈতিক নেতাহিসেবে গড়ে তুলতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছে।

কাজেই কলকাতা কেন্দ্রিক বঙ্গবন্ধুর এই অজানা বাকমজানা বিষয়গুলোকে জনসম্মুখে নিয়ে আসার জন্যই আমাদের এই প্রয়াস। কারণ কলকাতাপর্বকে বাদ দিলে বঙ্গবন্ধুকে পূর্ণাঙ্গরূপে বিশ্লেষণ করার ক্ষেত্রে অপূর্ণতা থেকেযাবে।

সংবাদ সম্মেলনে নির্মাতা গৌতম ঘোষ বলেন, আগামী জুনমাসের মধ্যে তথ্যচিত্রটি তৈরির কাজ শেষ হবে। এই প্রামাণ্যচিত্রে কলকাতায় বঙ্গবন্ধুরজীবনের ওপর আলোকপাত করা হয়েছে।

ঢাকা ও টুঙ্গিপাড়াও শুটিং হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটিআমার ব্যক্তিগত আবেগের জায়গা। আমি যখন ২২ বছরের যুবক, তখন কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে বঙ্গবন্ধু এসেছিলেন এবং আমরা সবাইতখন তাঁর ভাষণ শুনতে গিয়েছিলাম।

বঙ্গবন্ধুর জীবনে কলকাতা একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়জানিয়ে তিনি বলেন, চিকিৎসা, অধ্যয়নবা রাজনীতির কারণে তিনি অসংখ্যবার কলকাতায় গিয়েছিলেন। ওই অধ্যায়টি অত্যন্তগুরুত্বপূর্ণ। এই প্রামাণ্যচিত্রে ইংরেজি সাব-টাইটেল থাকবে এবং পরেইংরেজি ভার্সন হতে পারে বলেও জানান গৌতম।

সম্প্রতি কলকাতার বেকার হোস্টেল, তৎকালীন ইসলামিয়া কলেজ (বর্তমানে মওলানা আজাদ কলেজ), হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর বাড়িসহ বিভিন্ন এলাকায় শুটিং হয়েছে। ছবিরচিত্রনাট্য লিখেছেন দীপংকর চক্রবর্তী, তপর্সি গুপ্ত ও সোহেলচৌধুরী।

গৌতম ঘোষ বলেন, আমি ৯৮ বছর বয়সীনিহাদ চক্রবর্তী নামে একজনের সঙ্গে আলাপ করেছি। তিনি আমাকে জানিয়েছেন, বঙ্গবন্ধু কী পরিমাণ সাহসী একজন ব্যক্তি ছিলেন।

১৯৪০-এর দশকে শেখ মুজিবুর রহমান তখনও বঙ্গবন্ধু হয়েওঠেননি। ওই সময়ের কোনও অডিও, ভিডিও বা ছবি নেই। ফলে এইপ্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের ক্ষেত্রে একটি বড় চ্যালেঞ্জ ছিল বলে মনে করেন গৌতম ঘোষ।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লেখনীকে উপজীব্য করে এরচিত্রনাট্য তৈরি হয়েছে। এর সঙ্গে আরও বিভিন্ন লেখা ও বই থেকে উপাদান সংগ্রহ করাহয়েছে।

আরও বলেন, কলকাতায়অবস্থানকালে নিয়মিত সোহরাওয়ার্দীর বাসায় যেতেন বঙ্গবন্ধু। আমি যখন ওই বাসার খোঁজকরলাম, সেটি আর খুঁজে পাইনি, যা ২০ বছরআগেও ছিল।

গৌতম ঘোষ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনা ক্যামেররার সামনে কথা বলতে রাজি হয়েছেন। এটা এই তথ্যচিত্রের জন্য সব থেকেবড় বিষয়। এতে আলাপের মাধ্যমে অনেক বিষয় উঠে আসবে। আর বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে এই কাজটিকরতে গিয়ে তাকে যেভাবে জেনেছি, সুযোগ পেলে আগামীতে তাকে নিয়েসিনেমার মতো কাজও করা যেতে পারে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * কলকাতা * গৌতম ঘোষ * প্রামাণ্যচিত্র * বঙ্গবন্ধু
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ