নিরপেক্ষ অবস্থান ইস্যুতে আলোচনায় প্রস্তুত ইউক্রেন

 

নিরপেক্ষ অবস্থান গ্রহণ করে একটি শান্তি চুক্তির ব্যাপারে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা করতে ইউক্রেন প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। তবে তিনি বলেছেন, তার আগে কোনো তৃতীয় পক্ষের নিশ্চয়তা থাকতে হবে এবং একটি গণভোট হতে হবে।

রাশিয়ান সাংবাদিকদের সাথে এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। এর পরপরই তার সাক্ষাৎকার প্রকাশ না করার ব্যাপারে মস্কো থেকে সতর্কবার্তা এসেছে। এই সপ্তাহেই তুরস্কে ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে পরবর্তী মুখোমুখি আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে।

ওই সাক্ষাৎকারে ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, রাশিয়ার আগ্রাসনে ইউক্রেনের রুশ-ভাষী শহরগুলো ধ্বংস হয়েছে। আর এই ধ্বংসযজ্ঞ চেচনিয়ায় রাশিয়ার যুদ্ধের চেয়েও ভয়াবহ।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমাদের রাষ্ট্রের জন্য নিরাপত্তা নিশ্চয়তা এবং নিরপেক্ষতা, পরমাণুহীন মর্যাদা। আমরা এগুলো নিয়ে আলোচনার জন্য প্রস্তুত। এগুলোই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট।’ তবে নিরস্ত্রীকরণের মতো রাশিয়ার অন্য দাবিগুলো নিয়ে আলোচনায় করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন জেলেনস্কি। তুরস্কে অনুষ্ঠিতব্য আলোচনায় নিজ দেশের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতার ওপর জোর দেবেন বলে জানিয়েছেন জেলেনস্কি।

এদিকে, রাশিয়া ইউক্রেনকে উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দুই ভাগে ভাগ করার ষড়যন্ত্র করছে বলে দাবি করেছেন ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান। অন্যদিকে, এবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের পর জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শোলজও বলেছেন, ভ্লাদিমির পুতিন রাশিয়ার ক্ষমতায় থাকতে পারেন না। তবে এর মাধ্যমে রাশিয়ার ক্ষমতা পরিবর্তনের কথা বোঝানো হয়নি বলেও জানান তিনি।

এছাড়া ইউক্রেন অভিযোগ করেছে যে মারিওপোল থেকে জোর করে হাজার হাজার বেসামরিক ইউক্রেনিয়ান নাগরিকদের সীমান্ত পার করে রাশিয়া নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। স্যাটেলাইট ইমেজে দেখা গেছে মারিওপলের পূর্বে রাশিয়ার সীমান্তের ভেতরে একটি অস্থায়ী শিবির। যেখানে পাঁচ হাজারের মতো ইউক্রেনিয়ানকে রাখা হয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * ইউক্রেন * ইস্যু * তুরস্কে * নিরপেক্ষ * ভলোদিমি * রাশিয়া * শান্তি চুক্তি * সার্বভৌমত্ব
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ