বরিশালে নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ বরকত প্রদর্শিত

 

এস এল টি তুহিন :

২৬শে মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বরিশালে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে বরিশালে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর যুদ্ধবাহি জাহাজ বানৌজা বরকত প্রদর্শনী করা হয়েছে।

শনিবার (২৬শে মার্চ) বরিশাল মুক্তিযোদ্ধা পার্ক সংলগ্ন বিআইডব্লিউটিসি ঘাটে বেলা ২টা থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত বিভিন্ন শ্রেনীর মানুষ উৎসাহ ও আনন্দ করে এ যুদ্ধ জাহাজ পরিদর্শন করে। এসময় বানৌজা বরকতের কর্মরত সদস্যরা পরিদর্শনকারীদের বরকত সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন।

 

বানৌজা বরকত সূত্রে জানা যায়, অপরেশনাল কর্মকান্ড পরিচালনা করার রক্ষার্থে বানৌজা বরকতে রয়েছে উন্নত প্রযুক্তির অথ্যাধুনিক ২টি ৩৭ মিঃ মিঃ শীপস বর্ন অটোমেটিকনেভাল গান, ২টি টুইন ব্যারেল ২৫ মিঃ মিঃ গান এবং বিভিন্ন প্রকারের মাইন।

এই অত্যাধুনিক অস্ত্রের গোলার ওজন দেড় কেজি সহ এর কার্যকরী রেঞ্জ ত হাজার ৫শত ১৫ মিটার। যা মিনিটে ১শ৩ ৬০ রাউন্ড থেকে ১শত ৮০ রাউন্ড গোলা ছোড়ার সক্ষমতা বরকেতের রয়েছে।

 

বানৌজা বিএনএস বরকত অপরেশন ট্রেজারশিল্ড,অপরেশন নির্মূল, জাটকা নিধন প্রতিরোধ অভিযান, মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান, বিশেষ কম্বিং অপরেশন স্কোয়াড্রন ওয়ার্কআপ,টিজি ওয়ার্কআপ,সী এক্সারসাইজ প্রোগ্রাম ও ঘুর্ণিঝড় পরবর্তী সার্চ এন্ড রেসকিউ অপরেশন করে থাকে।

তারা আরো জানায় শুধু অপরেশনাল কর্মকান্ড নয় বরকত আর্ত মানবতার সেবায় ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী সময়ে উপকূল এলাকায় ও কোভিড-১৯ মহামারিতে ত্রান বিতরণে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

 

এছাড়া বানৌজা বরকত সফলতার সাথে বাৎসরিক সমূদ্র মহড়া ২০২০ সম্পূর্ন করা সহ ২০২১ বাৎসরিক সমূদ্র মহড়ায় বিশেষ ভূমিকা পালন করার আশা প্রকাশ করেন। বিএনএস বরকতে বিভিন্ন প্রর্যায়ের ৮০ জন ন্যে সদস্য সর্বক্ষন কর্মরত থাকা সহ এর স্প্রিড ২৫ নটিকল মাইল।

উল্লেখ্য বানৌজা বরকত ১৯৯৬ সালের ৮ই আগস্ট নৌবাহিনীতে কমিশনপ্রাপ্ত হয়। এরপর থেকে দেশের জলরাশি ও সাবভৌমত্ব রক্ষায় বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে। এছাড়া দেশের জলরাশি ও সাবভৌমত্ব রক্ষা ছাড়াও অপারেশনাল ও প্রশিক্ষণমূলক কর্মকান্ডে অংশ গ্রহন করে।

বানৌজা বরকত পরিদর্শন করতে আশা বরিশাল সরকারী মহিলা কলেজের অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী মারিয়া ইসলাম মিম বলেন, বানৌজা বরকত পরির্দন করতে এসে অনেক কিছু জানতে পেরেছি। বিশেষ করে যুদ্ধের কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন অস্ত্রের ব্যাপারে অনেক ধারনা পেয়েছি, যা আগে আমার জানা ছিলো না।

বরিশাল জিলা স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র আফিস খান বলেন, যুদ্ধের কথা দাদার মুখে শুনেছি। তবে এখানে এসে এই জাহাজ পরিদর্শন করে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে আরও নতুন করে অনেক কিছু শিখতে ও জানতে পেরেছি যা আমার জীবনে নতুন এক অভিজ্ঞতা হয়ে থাকবে।

অবসারপ্রাপ্ত সরকারী কর্মকর্তা মকিবুল খান বলেন, মহান স্বাধীনতা দিবসে এমন একটি আয়োজন সত্যি প্রশংসনীয়। এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে নতুন প্রজন্ম স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে অনেক ধারনা বা জ্ঞান অর্জন করতে পারবে।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * ঘাট * নৌবাহিনী * প্রদর্শিত * বরকত * বরিশাল * বানৌজা * বিআইডব্লিউটিসি * যুদ্ধজাহাজ * যুদ্ধবাহি জাহাজ * সশস্ত্র বাহিনী দিবস