গাজীপুরে অপরিকল্পিত ভবন নির্মাণ, আরেকটি রানা প্লাজা ট্রাজেডির আশংকা

 

শরিফুল ইসলাম, গাজীপুরঃ

গাজীপুর আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমাণ্য করে গাজীপুর নগরীতে চলছে অননুমোদিতভাবে ভবন নির্মাণ কাজ । প্ল্যান ব্যতিত নিয়ম বর্হিভূত ও ঝুঁকিপূর্ণ বাড়ি নির্মাণ কাজ বন্ধে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের নিষেধ উপেক্ষা করে বে- আইনীভাবে দালানকোঠা নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে । সিটি কর্পোরেশনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বাড়ি নির্মাণ করার আশঙ্কায় এক প্রতিবেশী গাজীপুর আদালতে মামলা দায়ের করেছেন ।

মামলা সূত্রে জানা যায় , গাজীপুর নগরীর ৮ নং ওয়ার্ডের হরিনাচালা এলাকায় মিরপুর মৌজার এস এ ৪১২ দাগ , আর এস ৮৮০ নং দাগে পাঁচ শতক জমির মালিক মো : কবির হোসেন । কোনাবাড়ি নীলনগর আই ব্লকের ৭০৩ নম্বর হোল্ডিং প্লটের জমির মালিক নিয়ম বহির্ভূত ও ঝুঁকিপূর্ণভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ করছেন । বাংলাদেশ দালান কোটা নির্মাণ আইন উপেক্ষা করে অননুমোদিতভাবে ভবন নির্মাণ করার অভিযোগ দেওয়ার পরও মো : কবির হোসেনের নিয়মবহির্ভূত ও ঝুঁকিপূর্ণ বাড়ি নির্মাণ কাজ বন্ধে প্রতিবেশী কামরুজ্জামান রনির অভিযোগের প্রেক্ষিতে নোটিশ দেয় গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন । নোটিশ প্রাপ্তির সাথে সাথে নিয়মবহির্ভূত ও ঝুকিপূর্ণ নির্মাণ কাজ বন্ধ রেখে নির্মিত বাড়ির প্ল্যান ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ নগর ভবনে উপস্থিত থাকতে বললেও সিটি কর্পোরেশনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কাজ চালিয়ে যান কবির হোসেন।

তাই বাধ্য হয়ে কামরুজ্জামান রনি বাদী হয়ে নিয়মবহির্ভূত ও ঝুঁকিপূর্ণ বাড়ি নির্মাণ কাজ বন্ধে বিবাদী মো : কবির হোসেনের বিরুদ্ধে বাধ্যতামূলক নিষেধাজ্ঞার রায় ও ডিক্রি চেয়ে গাজীপুরের ১ম সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে দেওয়ানি মোকদ্দমা নং ১১১/২০২২ দায়ের করেন । মামলায় উল্লেখ করা হয় সীমানা দেওয়ালের জায়গা না রেখে প্রতিবেশীর ঘরের সাথে মূলভবন স্থাপন করায় ঝুঁকির আশঙ্কা করা হয় । ইমারত নির্মাণ বিধিমালা উপেক্ষা করে অননুমোদিত ঝুঁকিপূর্ণ বহুতল বিল্ডিং পাশের বাড়ির উপর ধসে পরার আশঙ্কায় অবৈধ নির্মাণ বন্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয় ।

প্রতিবেশী মো : কামরুজ্জামান রনি বলেন , নিয়মবহির্ভূত ও ঝুঁকিপূর্ণ বাড়ি ধসে পড়লে আমার পারিবার এবং ভাড়াটিয়াদের জীবনের ঝুঁকি এবং বাড়িঘরের ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে । তাই অবৈধ নির্মাণ বন্ধে আদালতে নিষেধাজ্ঞার আবেদন করেছি ।

হরিনাচালা এলাকায় অননুমোদিতভাবে ভবন নির্মাণ বিষয়ে মো : কবির হোসেন বলেন , আপনি সাংবাদিক আমার কাছে কেন ফোন দিয়েছেন? আমি সিটি কর্পোরেশন থেকে অনুমোদন নিয়ে বাড়ি করছি। আপনার কিছু জানার থাকলে সিটি কর্পোরেশন ও থানায় যোগাযোগ করবেন।

কবির হোসেনের স্থাপনার অনুমোদনের ব্যাপারে জানতে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সেলিম রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, তার এলাকায় ঘনবসতি কোন বাড়ি তিনি বুঝতে পারছেন না। অবৈধ স্থাপনার বিষয়ে তার কাছে সিটি কর্পোরেশন থেকে কপি পাঠালেও তিনি বাড়িটি চিনতেই পারেননি।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর বিনু বারেকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, বাড়িটি ঝুকিপূর্ণ। আমরা বার বার নিষেধ করেছি, এটি যেকোন সময় ধসে পড়তে পারে। ঘটতে পারে প্রাণহানি। সিটি কর্পোরেশন অনুমোদন দিলে এলাকার প্রতিনিধি হিসেবে আমাদের থেকে জেনে তার অনুমোদন দেয়া হতো। সিটি কর্পোরেশন কোন ধরনের অনুমোদন দেয়নি। কবির হোসেন অনুমোদন না নিয়েই ঝুকিপূর্ণ বাড়ি নির্মাণের কাজ করছেন।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে কবির হোসেনের বাড়ির অনুমোদন ও কামরুজ্জামান রনির অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, এবিষয়ে তার জানা নেই। দেখে জানাতে হবে ।

গাজীপুর মেট্রোপলিটনের কোনাবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবু সিদ্দিকের সাথে মুঠোফোন যোগাযোগ করে কবির হোসেনের বাড়ির অনুমোদনের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমার কবির হোসেনের সাথে কখনো দেখা হয়েছে কি না মনে পড়ছেনা। আমি তাকে চিনতেই পারছি না। অনুমোদন বিহীন ঝুকিপূর্ণ বাড়িটি নির্মাণ হলে যেকোন সময় ঘটে যেতে পারে আরেকটি রানা প্লাজা ট্রাজেডি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * অপরিকল্পিত ভবন * গাজীপুর * ট্রাজেডি * নির্মাণ * রানা প্লাজা
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ