এইডস রোগের ওষুধ সংকটে পড়ে শত শত রোগী মৃত্যুর ঝুঁকিতে

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : গত ১৫ দিন যাবত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও কক্সবাজার সদর হাসপাতাল সহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে এইডস রোগের ঔষধের সঙ্কট ও ঘাটতি দেখা দিয়েছে। যার ফলে শত শত রোগী অসুস্থ হয়ে পড়ছে। এবং এইচএইভি সংক্রমণের হার বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সরকারি তথ্য মতে, বাংলাদেশে প্রায় ৫৫৫৩ জন এইডস রোগী চিকিৎসা সেবার আওতায় আছে। তার মধ্যে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ১২০১ জন রোগী সেবা নিয়ে থাকেন।

উল্লেখ্য যে, এই দুইটি সেন্টারে ঔষধের সংকট প্রকট আকারে দেখা দিয়েছে। বাকি সেন্টারগুলোতে স্বল্প পরিমানে মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ আছে বলে জানা যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ডাবল কম্বিনেশন এর ঔষধ যেমন TDF  3TC , ইফাভিরেন্স, ডলুটেগরাভিস সহ বিভিন্ন কম্বিনেশন এর ঔষধ পাওয়া যাচ্ছে না। অন্যদিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে সিঙ্গেল কম্বিনেশন ও ডাবল কম্বিনেশন এর ঔষধে যেমন টেনোফোবির ৩০০, ইফাভিরেন্স ৪০০, লামিবদিন ৩০০ সহ বিভিন্ন ঔষধ সঙ্কটে আছে।

উল্লেখ্য যে, এই ঔষধের সমস্যা বহুবছর ধরে চলে আসছে। ঔষধ সঙ্কটের বিষয়টি নিয়ে সরকারের ঔষধ প্রশাসনকে বলা হলেও এর কোনো স্থায়ী সমাধান এখনো দিতে পারেনি।

এইডস রোগীদের ওষুধ সময়মতো ও নিয়মিত খেতে হয় অন্যথায় তাদের মৃত্যু ঝুঁকিসহ নানা ধরণের কঠিন রোগে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি থাকে এবং হয়েও থাকে।

ঔষধের অভাবে অনেক রোগী এখন অসুস্থ হয়ে পড়েছে যাদের শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ।  প্রায়ই এইভাবে অনিয়মিত ঔষধ  সরবরাহের ফলে অনেক রোগীই হাসপাতালের “এআরটি” সেন্টারের সেবা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে। যার কারণে, এইচআইভি সংক্রমণের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যাচ্ছে এবং সরকারের এসডিজি লক্ষ্য মাত্রা পূরণের প্রকল্প ব্যাহত হচ্ছে।

ধারণা করা হয় বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ১৫ হাজারের ও বেশি এইচএইভি/এইডস আক্রান্ত রোগী আছে যাদের মধ্যে অধিকাংশই চিকিৎসা সেবার বাইরে।

এখনি এই অবস্থার লাগাম টেনে না ধরতে পারলে এবং ঔষধ সমস্যার স্থায়ী সমাধান না করতে পারলে এইচআইভি/এইডস  বাংলাদেশে ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * "এআরটি" সেন্টার * এইডস রোগ * চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ * চট্টগ্রাম মেডিকেলে ঔষধের সংকটে
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ