তাহিরপুরে বাকী না দেয়ায় ব্যবসায়ীর উপর হামলা, নারী ও শিশুসহ আহত ১০, আটক ১

শাহ আলম, তাহিরপুর(সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলায় সার বাকী না দেয়ায় বিএসটিআই ও টিসিবিয়ের ডিলার সামায়ুন কবিরের উপর হামলা চালিয়ে মারধর করা সহ তার বাড়িঘরের  ও পরিবারের উপর হামলা চালিয়ে নারী ও শিশুসহ ১০জনকে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা। এসময়ব হামলাকারীরা ব্যবসায়ী সামায়ুন কবিরের সাথে থাকা নগত প্রায় ৩ লক্ষ টাকাসহ ব্যবসার জরুরি কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
গুরুতর আহত সামায়ুন কবির, বিলকিস,কুলসুমা ও শিশু জায়মাকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তী করে । এবং বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
আজ(১০ মার্চ বৃহস্পতিবার) সকাল ৮ টার সময় উপজেলা সদরের ভাটি তাহিরপুর গ্রামের কালী বাড়ি সড়কে হামলাকারীরা প্রথমে সামায়ুন কবিরের উপর চালিয়ে মারধর করে গুরুতর আহত করে রাস্তায় ফেলে রেখে এবং পরে আবারও ব্যবসায়ী সামায়ুন কবিরের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তার পরিবারের লোকজনকে মারধর করে ও বাড়িঘর ভাঙচুর করে  হামলাকারীরা ।
পরে খবর পেয়ে তাহিরপুর থানা পুলিশ এ ঘটনায় সাথে জড়িত দীলশাদ মিয়া নামে একজনকে আটক । পুলিশের হাতে আটক দীলশাদ মিয়া  ভাটি তাহিরপুর গ্রামের ছফু মিয়া ছেলে।
আহতরা হলেন, সামায়ুন কবির,  আলী আশরাফ,কলছুমা বেগম, বিলকিস বেগম,ইমন মিয়া,শিপন মিয়া,শিশু জাইমাক সহ ১০ জন।
আহতের পরিবার,স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়,উপজেলার বিএসটিআই ও টিসিবি ডিলার সামায়ুন কবিরের দোকানে গত এক সাপ্তাহ পূর্বে সার ও বীজ আনতে যায় লোলন মিয়া। এসময় সার ও বীজের টাকা বাকী থাকবে লোলন মিয়া বললে ব্যবসায়ী সামায়ুন বাকী দেবেনা বলেন। বাকী না দেয়ায় লোলন মিয়া ক্ষিপ্ত হলে এ সময় তাদের দুজনের মধ্যে কাথাকাটাকাটি হয়।
এরই জেড়ধরে আজ বৃহস্পতিবার সকাল সামায়ুন কবির ব্যবসার কাজের স্বার্থে  নিজ বাড়ি থেকে সুনামগঞ্জ যাওয়ার উদ্দেশ্য রওনা দিয়ে ভাটি তাহিরপুর গ্রামের কালী মন্দিরের সামনে আসা মাত্রই পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে একই গ্রামের লোলন (৫০),নয়ন মিয়া(২৩), মোকতাদির (২৭)দীলশাদ মিয়া (৩৫)ওয়াশীম (৩০)ছমির মিয়া (৫৫),রিংকু মিয়াসহ প্রায় ১০-১৫ জনের একটি গ্রুপ দেশিও অস্ত্র নিয়ে সামায়ুন কবিরের উপর হামলা চালিয়ে মারধর করে গুরুত্বর আহত করে। এ সময় তার সাথে থাকা ব্যাগে প্রায় ২লাখ ৩১হাজার টাকা ও ব্যবসা সংশ্লিষ্ট জরুরি কাগজপত্র নিয়ে আহত অবস্থায় সামায়ুনকে রাস্তায় ফেলে গিয়ে হামলাকারীরা আবারও  ডিলার সামায়ুনে বাড়িতে গিয়ে হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারীদের প্রতিহত করতে চাইলে আলী আশরাফ, কলছুমা বেগম, বিলকিস বেগম, ইমন মিয়া, শিপন মিয়া, শিশু জাইমাক হামলাকারীদের হামলায় গুরুতর  আহত হয়। পরে তাদের ডাক চিৎকারে স্থানীয় এলাকাবাসী এগিয়ে হামলাকারীরা পালিয়ে গেলে স্থানীয়রা সামায়ুন কবির, বিলকিস,কুলসুমা ও শিশু জায়মাকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে তাহিরপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকগন তাদের অবস্থার অবনতি হলে তাদের সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে রের্ফাড করে। এবং বাকী আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এর সত্যতা নিশ্চিত করে তাহিরপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার বলেন, এ ঘটনায় জিজ্ঞাসা বাদের জন্য একজনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে ঘটনাটি সার ও বীজ বাকী দেয়ে নিয়ে ঘটেনি। মুলত তাদের পারিবারিক ঘটনা। জমি সংক্রান্ত বিষয়াদি নিয়ে এ মারামারি ঘটনাটি ঘটেছে। দুপক্ষের লোকজনই আহত হয়েছে।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * বাকী না দেয়ায় ব্যবসায়ীর উপর হামলা * বিএসটিআই * সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলা
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ