চাঁদা দাবি ও হুমকির জন্য ঠাকুরগাঁওয়ে খেজুরের রস দিয়ে গুড় তৈরী বন্ধ

মো: জাহিদ হাসান মিলু, জেলা প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও: গত বছরের মতো এবারেও শীত মৌসুমে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বোচাপুুকুর এলাকার সুগার মিলের খেজুর বাগান লিজ নিয়ে রাজশাহীর কয়েকজন গাছি গাছের রস সংগ্রহ করে তৈরী করছিল গুড়। গতবারের ন্যায় খেজুরের রস ও রস থেকে তৈরীকৃত গুড় বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল এবছরেও। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে এখানকার গুড় যাচ্ছিল রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় কিন্তু কিছু অসাধু লোকের হুমকি ও গাছিদের কাছে চাদা দাবি করায় গাছিরা গুড় তৈরি বন্ধ করে দেয়।

রাজশাহী থেকে আগত গাছি ও গুড় তৈরীর কারিগর সুজন আলী মুঠোফোনে জানান, ‘কয়েকজন লোক রাতে এসে ফ্রীতে খেজুরের রস খেতে চায়। তাদের রস খেতে না দিলে তারা নানা হুমকি প্রদান করে ও চাদা দাবি করেন।’

সুজন আলী বলেন, ‘খেজুর বাগানে এক দুইদিন পর পর এসে তারা এভাবে চাদা দাবি করেন ও হুমকি দেন। ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত তারা চাদা দাবি করেন। শেষ পর্যন্ত উপায়ান্তর না পেয়ে আমরা বাধ্য হয়ে গুড় তৈরীর কাজ বন্ধ করে বাড়ি চলে আসি।,

চাদা দাবি করা ও হুমকি প্রদানকারিদের পরিচয় জানতে চাইলে সুজন আলী জানান, চাদা দাবি করা ও হুমকি প্রদানকারিরা রাতের আধারে মুখ ডেকে আসতো, নাম পরিচয় জানতে চাইলে তারা তাদের পরিচয় দিত না। তাই তাদের নাম ও পরিচয় জানা যায়নি।,

এবিষয়ে সুজন আলী স্থানীয় প্রশাসন বিভাগের কারও কাছে অভিযোগ করেছে কিনা তা জানতে চাইলে তিনি জানান, আমাদের বাড়ি অনেক দুরে। রাতের আধারে তারা যদি সেখানে আমাদের মেরে ফেলতো কে আসতো আমাদের বাঁচাতে? তাই প্রাণের ভয়ে আমরা প্রশাসনকে বিষয়টি জানাইনি।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা মাঘ মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত খেজুর রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি করতাম কিন্তু হুমকি ও চাদা দাবি করার কারণে গত সপ্তাহে আমরা বাড়ি চলে আসি।,

এই বিষয়টি শুনে স্থানীয়রা জানান, এটি খুব দুঃখজনক বিষয়। এতে কিছু অসাধু লোকের জন্য আমাদের জেলার সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। এই বিষয় গুলো এড়াতে প্রশাসনকে আরও তৎপর হতে হবে।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার বিষয়টি অত্যান্ত দুঃখজনক বলে আবু তাহের মোঃ সামসুজ্জামন বলেন, গাছিরা বিষয়টি যদি আমাকে অবগত করতো তাহলে তাৎক্ষণিক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেত। ভয়পেয়ে গাছিরা গুড় তৈরির কাজ বন্ধ না করে তাদের উচিত ছিল প্রশাসনকে অবগত করা। আগামিতে এধরণের কোন কিছু হলে কঠোর হস্তে তা দমন করা হবে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য- প্রাকৃতিক পরিবেশে গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি করা দৃশ্য দেখতে, রস খেতে ও গুড় ক্রয় করতে বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিদিন শতশত দশনার্থীরা এখানে ভিড় করতো। আগত দর্শনার্থীরা এখানকার খেজুরের রস ও গুড় খেয়ে স্বাদ ও তৃপ্তি পেত এছাড়াও এখানকার পরিবেশ দেখে স্বাচ্ছন্দ বোধ করতেন তারা। সদর উপজেলার বোচাপুুকুর এলাকার সুগার মিলের এই খেজুর বাগানটি মৌসুমি পর্যটন কেন্দ্রে পরিনত হয়েছিল।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * খেজুর * চাঁদা দাবি * ঠাকুরগাঁও * হুমকি
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ