মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ায় তৃতীয় হলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত কিশোয়ার

রান্নাবিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়া-২০২১’-এর দ্বিতীয় রানারআপ নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কিশোয়ার চৌধুরী।

তিন মাস ধরে চলা এ প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে মঙ্গলবার রাতে ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। দুই দিনের এই প্রতিযোগিতায় প্রথম দিন কিশোয়ারের ঝুড়িতে আসে ৫১ পয়েন্ট, অন্যদিকে পিট ৫৩ পয়েন্ট পেয়ে শীর্ষে ছিলেন; জাস্টিন পেয়েছিলেন মাত্র ৫০ পয়েন্ট। শেষ দিনে ঘুরে যায় পয়েন্টের খাতা। ১১৪ পয়েন্ট আসে আমাদের কিশোয়ারের ঝুলিতে আর পিটের ১২৪। জাস্টিন ১২৫ পয়েন্ট পেয়ে অর্জন করেন শীর্ষস্থান। চ্যাম্পিয়ন হিসেবে জাস্টিন পান দুই লাখ ৫০ হাজার ডলার, ৩০ হাজার ডলার পান পিট এবং কিশোয়ার পান ২০ হাজার ডলার।

এটি ছিল মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার ১৩তম আসর। কিশোয়ার প্রতি পর্বেই রান্না করেছেন মজার মজার বাঙালি খাবার। যার মধ্যে ছিল মাছের ঝোল, শিমভর্তা, গলদা চিংড়ি ভাজা, সবজি, মাছ ভাজা, ফুচকা, চটপটি, তেঁতুলের চাটনি, খিচুড়ি, বেগুনভর্তা, খাসির রেজালা, পরোটা, নেহারিসহ মজার সব বাঙালি খাবার।

অস্ট্রেলিয়ার রিয়েলিটি শোতে বাঙালি খাবার রান্না করে বাংলাদেশে ও ভারতের দর্শকদের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন কিশোয়ার। সেই সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার বাঙালি কমিউনিটিতে আলোচিত হয়েছেন তিনি; সেই আলোচনার খবর দেশটির গণমাধ্যমেও এসেছে।

কিশোয়ারের জন্ম মেলবোর্নে। মা লায়লা এবং বাবা কামরুল চৌধুরীর সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার বাঙালি কমিউনিটিতে তিনি বেড়ে ওঠেন। তার বাবা বাংলাদেশি এবং একজন মুক্তিযোদ্ধা। তিনি মূলত পড়াশোনার উদ্দেশে অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমিয়েছিলেন। সেখানেই দেখা হয় ভারতীয় লায়লার সঙ্গে। কিশোয়ার তার ব্যাচেলর ডিগ্রি নেন মনাশ ইউনিভার্সিটি থেকে এবং পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন শেষ করেন ইউনিভার্সিটি অব আর্ট ইন লন্ডন থেকে। তিনি চাকরি সূত্রে পাঁচ বছর বাংলাদেশে ছিলেন। সেই সময় তিনি দেশের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত হন। ২০১৫ সালে মেলবোর্নে ফিরে গেলেও দেশের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন সবসময়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
Add to Queue Add to Playlist Share

Developed by: Web Design & IT Company in Bangladesh