ইয়াস বুধবার দুপুরে ভারতের পূর্ব উপকূলে আঘাত হানতে পারে

 

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের তাণ্ডবের আশঙ্কায় ভারতের পূর্বাঞ্চলের উপকূল থেকে ২০ লাখের বেশি মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার তাদের আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া হয়। মাত্র আট দিন আগে দেশটির পশ্চিম উপকূলে প্রাণঘাতী ঘূর্ণিঝড় তাউতের আঘাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির ক্ষত না শুকাতেই বুধবার প্রবল শক্তি নিয়ে ইয়াস আছড়ে পড়ার শঙ্কায় নাগরিকদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে গতকাল থেকে বিভিন্ন অঞ্চলে ভারি বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে।

আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শেষ মুহূর্তে ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডব থেকে বেঁচে যেতে পারে পশ্চিমবঙ্গ। তবে প্রবল বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। ফলে নদীর পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পেতে পারে। তাই আগেভাগে রাজ্যের একাধিক জেলায় বন্যার সতর্কতা জারি করেছে রাজ্য প্রশাসন। স্থানীয় প্রশাসনকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে, বুধবার দুপুরে ইয়াস ‘আরও শক্তিশালী হয়ে’ ভারতের অল্প্রব্দপ্রদেশ, ওডিশা ও পশ্চিমবঙ্গে আঘাত হানতে পারে। দেশটির আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, ইয়াস যখন আঘাত হানবে, তখন বাতাসের গতিবেগ থাকতে পারে ঘণ্টায় ১৫৫ থেকে ১৬৫ কিলোমিটার। এ সময় ঘণ্টায় ১৮৫ কিলোমিটার বেগে দমকা হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

কলকাতার আঞ্চলিক আবহাওয়া দপ্তরের উপপরিচালক সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ঘূর্ণিঝড় ইয়াস ওডিশার পারাদ্বীপ ও পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ এলাকার মধ্যবর্তী যে কোনো এলাকায় আঘাত হানতে পারে। এদিকে ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় পশ্চিমবঙ্গ ও ওডিশায় ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এই দুই রাজ্যে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গ ও ওডিশায় ন্যাশনাল ডিজাস্টার ফোর্স (এনডিআরএফ) এবং কোস্টগার্ড মোতায়েন করা হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে এনডিআরএফের ৪৫টি টিম মোতায়েন করা হয়। ওডিশায় এনডিআরএফের ২৮টি টিম মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া অল্প্রব্দপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, আন্দামান ও নিকোবরেও এনডিআরএফের টিম মোতায়েন করা হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে প্রাণহানি ঠেকাতে রাজ্যের উপকূলীয় এলাকা থেকে ১০ লাখ মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ওডিশার স্পেশাল রিলিফ কমিশনার পি কে জেনা বলেন, উপকূলীয় এলাকার বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়ার কাজ মঙ্গলবার বিকেলের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা।

ইয়াসের প্রভাব মোকাবিলায় গৃহীত পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ওডিশা, পশ্চিমবঙ্গ ও অল্প্রব্দপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী এবং আন্দামান ও নিকোবরের প্রশাসকের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন