রাণীশংকৈলে সয়াবিন তেলের পাঁচ ও তিন লিটার বোতলে ভুতের বাসা 

 

 

নাজমুল হোসেন,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

 

এখনো বাকি রমজানের প্রায় এক মাস আর এই সুযোগেই সয়াবিন আর পেঁয়াজের বাজারে ‘ভুতের বাসার মতো অলোকিক ভাবে সংযম’ ভেঙে পড়েছে রানীশংকৈলের মুদিদোকান গুলোতে। সয়াবিনের সঙ্গে দাম বাড়ছে পেঁয়াজের। ‘সরবরাহ নেই’ অজুহাত তুলে বাজার থেকে ভোজ্যতেলের পাঁচ ও তিন লিটারের বোতল উধাও হয়ে গেছে। গত কয়েকদিন ধরে ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলা শহরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমনটি দেখা গেছে। এ যেন ভুতুরে গল্পের মতোই ঠিক এক গল্প। অপর দিকে ক্রেতারা বলছে উল্টো চিত্রের কথা।

তারা পাঁচ লিটার সয়াবিন কিনতে গেলে দুটি দুই লিটার এবং একটি এক লিটার বোতল ধরে দিচ্ছেন দোকানিরা। এতে তাঁদের বাড়তি টাকা গুনতে হচ্ছে পকেট থেকে। এদিকে রমজানের আগেই পেঁয়াজের বাজার অস্থির হয়ে উঠছে। সাধারণ মানুষের সক্ষমতা বিবেচনায় নিয়ে সরকারকে সার্বিক বাজার পরিস্থিতি বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়ার দাবি তুলছেন ক্রেতারা সহ নিম্ন আয়ের মানুষ।

 

পৌরসভার পাইকারি বাজারে গিয়ে যায়, প্রত্যেক দোকানে এক লিটার ও দুই লিটার বোতলজাত সয়াবিন পাওয়া গেলেও তিন লিটার ও পাঁচ লিটার বোতল পাওয়া যাচ্ছে না কোন সর্বরাহ কারী প্রতিষ্ঠানের। দু’একটি দোকানে একটি কিংবা দুটি বোতল পাওয়া গেলেও তারা নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে প্রতি বোতলে ৩৫ থেকে ৫০ টাকা বেশি হাতিয়ে নিচ্ছেন ক্রেতাদের পকেট থেকে।

নেকমরদ বাজারের মুদি দোকানদার বাবুল হোসেন বলেন, ‘আমার কিছু করার নাই। আমি নিজে বেশি দামে কিনেছি। কোম্পানি বেশি দাম নিলে আমি কী করব। সরবরাহ না থাকলেও ক্রেতা ধরে রাখার জন্য আমাকে ম্যানেজ করে বিক্রি করতে হচ্ছে।’

আলতাফ নামে এক ক্রেতা জানান, তিনি প্রতি মাসে ৫ লিটার সয়াবিন কিনলেও আজ কোথাও ৫ লিটার আর তিন লিটার বোতল পাচ্ছেন না। একাধিক বোতল নিলে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে।

রাণীশংকৈল উপজেলার তীর সয়াবিন তেলের ডিলার নিশারউদ্দীন জানান, তারা কোম্পানির অনুকূলে টাকা পাঠিয়েও চাহিদা অনুযায়ী পাঁচ লিটার ও তিন লিটার বোতলের সয়াবিন তেল পাচ্ছেন না। দুই দিন ধরে তাঁদের স্টকে এই পরিমাপের সয়াবিন তেলের বোতল নেই। ফলে তারা ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী সর্বরাহ করতে পারছেন না।

এদিকে সয়াবিন তেলের বাজার সাথে তাল রেখে পেঁয়াজের বাজারও গরম হয়ে উঠছে। পাইকারি বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম এক দিনে কেজিতে ১০ থেকে ১২ টাকা বেড়ে ৫০ থেকে ৫২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর দেশি পেঁয়াজের সরবরাহ কম থাকার অজুহাত তুলে কেজিতে আট থেকে দশ টাকা বেড়ে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খুচরা বাজারে তো আরো গরম। দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৬৫ টাকা এবং এলসি পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পাইকারি আড়তদার আমিনুল ইসলাম বলছেন, ‘ঠাকুরগাঁও মোকামে দাম বেড়েছে। আমরা যেমন দামে কিনছি তেমন দামে বিক্রি করছি। আর বৃষ্টির কারণে পেঁয়াজের খেতে ক্ষতি হয়েছে। ফলে সরবরাহ কমে গেছে, এ জন্য দাম বাড়ছে।’

কৃত্রিম সংকট নিরসন ও রমজানকে সামনে রেখে বাজার তদারকি বাড়ানো হচ্ছে বলে জানান জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ শেখ শাদী। তিনি বলেন, আমরা ইতিমধ্যে বাজার তদারকি বাড়িয়েছি এবং আরো অভিযোগ পেলে কঠিন শাস্তির আওতায় আনা হবে।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * রাণীশংকৈল * সয়াবিন তেল
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ