প্রতিশোধ চায় না, শরিয়া অনুযায়ী নারী অধিকার: তালেবান 

শরিয়া আইন মেনে নারীও গণমাধ্যম কাজ করতে পারবে। তালেবান কোন প্রতিশোধ চায় না। মঙ্গলবার কাবুলে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানায় তালেবানের মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ।

এদিকে, তালেবানের রাজনৈতিক দপ্তরের প্রধান মোল্লা বারাদার তালেবান শীর্ষ নেতাদের নিয়ে আফগানিস্তানের কান্দাহারে পৌঁছেছেন।

আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার দুইদিন পর, কাবুলে প্রথম সংবাদ সম্মেলন তালেবানের। শুরুতে আফগানিস্তানের স্বাধীনতা জনগণের জন্য গর্বের বিষয় বলে জানান, জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ। দেশের ভেতরে ও বাইরে শত্রুতা চায় না বলে মন্তব্য করেন গোষ্ঠীটির মুখপাত্র।

এসময় তালবানের এ মুখপাত্র বলেন, স্বাধীনতা সবার অধিকার। ২০ বছরের যুদ্ধ শেষে, আফগান জনগণ তাদের আইনগত অধিকার পেয়েছে। দখলদারদের থেকে দেশকে রক্ষা করতে সক্ষম হয়েছি। এটা পুরো দেশের জন্য গর্বের মুহূর্ত। যারা অতীতে আমাদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছে তাদের ক্ষমা করেছি।

রোববার কাবুলে প্রবেশের কারণ হিসেবে জনগণের নিরাপত্তার কথা উল্লেখ করেন মুজাহিদ। সরকারি বাহিনীকে অযোগ্য বলেন তিনি।নারী ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা প্রশ্নে শরিয়া আইন মেনে চলার আহ্বান জানান তালেবানের এই মুখপাত্র।

শরিয়া আইনে নারীদের অধিকার এবং গণমাধ্যমের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ আমরা। ইসলামি মূল্যবোধের বিরুদ্ধে কিছু করা উচিত হবে না। নারীদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ করা হবে না। কারো বিরুদ্ধে নয়, দেশের ঐক্যের স্বার্থে কাজ করবে গণমাধ্যম।

সংবাদ সম্মেলনে, অনুবাদকসহ কারো ওপর প্রতিশোধ নেয়া হবে না বলে জানান মুজাহিদ।

এদিকে, তালেবানের সঙ্গে কোনো শত্রুতামূলক আচরণ না করার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। কাবুল থেকে লোকজন সরানোর সময় তালেবান হস্তক্ষেপ করেনি বলে জানান মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনের মুখপাত্র জন কিরবি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * আফগানিস্তান * তালেবান