তিন ঘণ্টা পরই উল্টো সুর এমপি একরাম চৌধুরীর

আওয়ামী লীগ ছাড়ার ঘোষণা দেওয়ার তিন ঘণ্টা পর এবার পাল্টা বক্তব্য দিয়েছেন নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী।

তিনি বলেন, রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণার বিষয়ে ভুল ব্যাখ্যা দেওয়া হচ্ছে। আজকে শেখ কামালের জন্মদিন ছিল, আমি সেখানে  কিছু বক্তব্য দিয়েছি। সেই বক্তব্যে  ভুল ব্যাখ্যা হয়েছে ।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) বিকেল ৩টার দিকে নিজের ফেসবুক আইডিতে লাইভে এসে তিনি এমন দাবি করেন।
একরামুল করিম চৌধুরী বলেন, উল্লেখ করা হয়েছে আমি নাকি রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছি। সেখানে আমি বলেছিলাম ৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর হিথ্রো বিমানবন্দরে যারা বঙ্গবন্ধুকে ফেরাউন বলেছে তারা চায় আমি যেনো রাজনীতিতে না থাকি। গত সম্মেলনে যারা আমার ছাত্রলীগ যুবলীগের পিঠের চামড়া তুলে দিয়েছে আমি তাদের বিরুদ্ধে কিছু কথা বলেছি।
একরামুল করিম চৌধুরী আরও বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আমার প্রাণ। হ্যাঁ এসব নোংরামির কারণে আমার পরিবারের অনেকে চায় আমি যেন আওয়ামী লীগ ছেড়ে দেই। যারা আওয়ামী লীগ করে তাদের রক্তের মধ্যে হচ্ছে নেশা, যারা একবার আওয়ামী লীগ করে তারা আর ছাড়তে পারে না।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি অনুরোধ করে একরামুল করিম চৌধুরী বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুকে ফেরাউন বলেছে এবং গত সম্মেলনে আমার ছাত্রলীগ ও যুবলীগের ওপর হামলা করেছে আপনি তাদের বিচারের আওতায় আনুন। আমি নোংরা রাজনীতি করি না। যদি নোংরা রাজনীতি করতাম তাহলে অনেকেই অনেক কিছু করতে পারতো।

তিনি আরও বলেন, আমি আবারও বলছি আমি আওয়ামী লীগকে ভালোবাসি। নোয়াখালীর আওয়ামী লীগকে ভালোবাসি। আমি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। দল যতদিন মনে করবে আমার থাকার দরকার আমি ততদিন থাকব, দলের জন্য নিজেকে বিসর্জন দিব। আজকে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন।
এর আগে বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) দুপুর সোয়া ১টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭২তম জন্মদিন উপলক্ষে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা দিয়ে বক্তব্য দেন এমপি একরাম চৌধুরী।
তিনি বলেন, ‘আমি ও আমার ছেলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি আর রাজনীতিই করব না। সেটা জেলা হোক আর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ হোক, কোথাও থাকব না।’
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
বিষয়: * এমপি একরাম চৌধুরী * পদত্যাগ