টিকার দাম প্রকাশ হওয়ায় ‘দুঃখ প্রকাশ’ করে চীনকে চিঠি দিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

 

অপ্রকাশিত চুক্তি অনুযায়ী সিনোফার্মের করোনা টিকার দাম প্রকাশ হওয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছে চীন। অপরদিকে বিষয়টি অনিচ্ছাকৃতভাবে হয়েছে উল্লেখ করে  ব্যাপারে দুঃখ প্রকাশ ভবিষ্যতে ধরনের ঘটনা ঘটবে না বলে চীনকে আশ্বস্ত করে চিঠি দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যমকে জানান, টিকার দাম সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার কারণে চীনের সাথে প্রস্তাবিত চুক্তি অনুযায়ী ১০ ডলারে টিকা পাওয়া নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। চীনকে দুঃখ প্রকাশ করে এবং ইচ্ছাকৃতভাবে টিকার দাম প্রকাশ করা হয়নি উল্লেখ করে একটি চিঠি দেওয়া হয়েছে।

মহামারি করোনা সংক্রমণ রোধে চীনের সিনোফার্মের কাছ থেকে দেড় কোটি ডোজ টিকা কেনার চুক্তি করেছে বাংলাদেশ। মন্ত্রিপরিষদের টিকা ক্রয় কমিটি চীনের এই ভ্যাকসিন কেনার অনুমোদন দেয়। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে চীনা টিকা কেনার বিষয়টি অনুমোদন দেওয়া হয়।

প্রস্তাবিত চুক্তি অনুযায়ী, বাংলাদেশকে প্রতি চালানে ৫০ লাখ করে তিন ধাপে দেড় কোটি ডোজ টিকা দেওয়ার কথা হয় চীনের সঙ্গে। এ টিকার ডোজপ্রতি দাম ধরা হয়েছিল ১০ ডলার। বাংলাদেশের কাছ থেকে টিকার চাহিদাপত্র পাওয়ার পর বাণিজ্যিক স্বার্থে টিকার দাম যেন কোনোভাবে প্রকাশ করা না হয়, সে বিষয়ে বলে দেয় চীন।

কিন্তু গত ২৭ মে চীনের কাছ থেকে দেড় কোটি টিকা কেনার প্রস্তাব সরকারের ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি অনুমোদন দেওয়ার পর বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. শাহিদা আকতার সাংবাদিকদের টিকার দাম বলে দেন। তিনি বলেন, চীন থেকে ৫০ লাখ করে তিন ধাপে দেড় কোটি ডোজ টিকা আনা হবে। প্রতি ডোজের দাম পড়বে ১০ ডলার। সে হিসেবে ১ হাজার ২৬৭ কোটি টাকা খরচ হবে।

চুক্তি হওয়ার আগেই এই দাম সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় চীন। এ কারণে ১০ ডলারে টিকা পাওয়া নিয়ে জটিলতা দেখা দিয়েছে। বিষয়টি মীমাংসা ও দ্রুত টিকা পাওয়া নিশ্চিত করতে চীনকে চিঠি দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করা হয়েছে। যদিও চিঠির জবাব এখনও দেয়নি চীন।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন