করোনায় মায়ের মৃত্যুর  ঘণ্টাখানেক পর মারা গেল নবজাতক

করোনায় আক্রান্ত ফারজানা আক্তার (৩০) নামের সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক নারীকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ওই হাসপাতালের আইসিইউ ইউনিটে থাকা অবস্থায় রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় তিনি এক ‘প্রি-ম্যাচিউর’ পুত্রসন্তান প্রসব করেন। এর কয়েক ঘণ্টা পর সোমবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে আইসিইউ ইউনিটে মারা যান ফারজানা। মায়ের মৃত্যুর ঘণ্টাখানেক পর ভোর সাড়ে ৬টার দিকে একই হাসপাতালে নবজাতক ওয়ার্ডে মারা যায় নবজাতক।

ফারজানা কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার আদ্রা ইউনিয়নের হরিশাপুরা গ্রামের সোহেল পাটোয়ারীর স্ত্রী।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়,  ফারজানা আক্তারকে নিয়ে সৌদি আরব থাকতেন। কয়েক দিন আগে তিনি দেশে ফেরেন। সম্প্রতি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা ফারজানা। তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গত ১৭ মে তাকে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়। পরে তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। এরই মধ্যে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ‘প্রি-ম্যাচিউর’ পুত্রসন্তান প্রসব করেন তিনি। শিশুটিকে বিশেষায়িত হাসপাতালে এনআইসিইউতে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য বলেন চিকিৎসক। কিন্তু স্বজনরা এ উদ্যোগ নেয়নি। পরে ওই নবজাতকে হাসপাতালের ইনকিউবেটরে রাখা হয়। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ফারজানা মারা যান। এর এক ঘণ্টা পর ওই নবজাতকের মৃত্যু হয়।

সোমবার বিকেলে কুমিল্লা মেডিকেলের করোনা ইউনিটের মেডিকেল অফিসার ডা. আসিফ ইকবাল বলেন, ”ফারজানা আক্তার নামের ওই নারী ২৪ সপ্তাহের (ছয় মাসের) অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। তার জন্ম দেওয়া সন্তানের ওজন ছিল মাত্র ৭৫০ গ্রাম। মেডিকেলের ভাষায় এ ধরনের শিশুকে ‘প্রি-ম্যাচিউর বেবি’ বলা হয়। আমরা চেষ্টা করেছিলাম, কিন্তু ওই নবজাতক ও তার মাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি।”

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন