এবার শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করার অপেক্ষা

 

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথমবার সিরিজ জয়ে রাষ্ট্রের বিভিন্ন পর্যায় থেকে অভিনন্দনে সিক্ত তামিমদের ম্যাচের পর ছুটির দিনটি কেটেছে ভালো লাগার আবেশে। ক্রিকেটারদের সে রোমাঞ্চকে আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয় আইসিসির আপডেট প্লেয়ার্স র‌্যাঙ্কিংয়ে মিরাজ, মুস্তাফিজ, মুশফিকের উন্নতি। আজ সিরিজের শেষ ম্যাচ জিততে পারলে উৎসবের আরও বড় উপলক্ষ তৈরি হবে। প্রথম সিরিজ জয়ের পর প্রথমবার শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করার আনন্দে বুঁদ হয়ে থাকতে পারবেন তারা। এই মাইলফলকের ভেতর দিয়ে বিশ্বকাপ সুপার লিগের পয়েন্ট টেবিলেও উন্নতি ঘটবে। সিরিজ জিতে টেবিলের শীর্ষে ওঠা বাংলাদেশের পয়েন্ট বেড়ে হবে ৬০। যেটা ২০২৩ সালে অনুষ্ঠেয় ওয়ানডে বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার পথে আরও খানিকটা এগিয়ে দেবে তামিমদের। শেষ ওয়ানডে জিততে এই দুটি লক্ষ্যই পূরণ করতে চান মাহমুদুল্লাহরা। গতকাল দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদ সম্মেলনে শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করলেন তিনি।

বিশ্বকাপ সুপার লিগ চালু হওয়ার পর বাংলাদেশ প্রথম সিরিজ খেলেছে জানুয়ারিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। তামিম ইকবালের নেতৃত্বে সিরিজের তিনটি ম্যাচই জিতে নেয় স্বাগতিকরা। টাইগাররা সুপার লিগের পরের সিরিজ খেলে নিউজিল্যান্ডে। মার্চের অ্যাওয়ে সিরিজটি খুব বাজে গেছে দলের। কিউইদের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতাই করতে পারেনি। ব্যাটিং-ফিল্ডিং মোটেও ভালো যায়নি। শ্রীলঙ্কা সিরিজের আগে যেটা দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে উঠেছিল। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে প্রথম ওয়ানডে জিতে যাওয়ায় সে চাপ কিছুটা কমে। সিরিজ নির্ধারণী দ্বিতীয় ওয়ানডেটি তাই কিছুটা সহজ করে জেতা গেছে। যদিও দুই ম্যাচেই প্রত্যাশিত ব্যাটিং করতে পারেনি টপঅর্ডার। দুই ম্যাচেই হাসেনি লিটন, সাকিবের ব্যাট। প্রথম ম্যাচের পর বাদ পড়তে হয় মিঠুন, তাসকিনকে। মিঠুনের জায়গায় যাকে খেলানো হয় সেই মোসাদ্দেকও রান পাননি। তবে সাইফউদ্দিনের হেলমেটে বলের আঘাত লাগায় কনকাশন সাব হিসেবে বোলিং করেন তাসকিন। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে বোলিং ভালোও হয় তার। মূলত বোলারদের সমন্বিত পারফরম্যান্স ম্যাচ জয়ের কাজটি সহজ করে দিয়েছে। ফিল্ডিংয়ে উন্নতি দেখা গেলেও দল হিসেবে এখনও সেরাটা খেলতে পারেনি বাংলাদেশ। মাহমুদুল্লাহ সেটা মেনেও নিলেন, ‘আমার মনে হয় ব্যাটিং-বোলিং সব মিলিয়ে আমরা সেরা ক্রিকেটটা খেলতে পারিনি। আমাদের নিজেদের মধ্যে এ নিয়ে কথা হয়েছে। আশা করি শেষ ম্যাচে আমরা সেরা ক্রিকেটটা খেলার চেষ্টা করব।’

এই সিরিজে এখন পর্যন্ত ধারাবাহিক ব্যাটসম্যান মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ। জুটিতেও সফল তারা। মুশফিক হাফ সেঞ্চুরি পর সেঞ্চুরি করেন। মাহমুদুল্লাহ প্রথম ম্যাচ হাফ সেঞ্চুরি করলেও দ্বিতীয় ম্যাচে সেট হয়ে চল্লিশের কোটায় উইকেট বিসর্জন দেন। এ দুই সিনিয়র ক্রিকেটারের কাছ থেকে আজও রান আশা না করে ওপেনিং থেকে দায়িত্ব নিতে হবে। বিশেষ করে সাকিবের রানে ফেরা খুবই প্রত্যাশিত। মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদেরও স্লগে পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলতে হবে। মাহমুদুল্লাহর বিশ্বাস, সাকিব এ ম্যাচে রান করবেন। তিনিও চেষ্টা করবেন ধারাবাহিকতা রেখে বড় ইনিংস খেলতে। তবে আগের দুই ম্যাচের মতো আড়াইশ রান করলে শেষ ওয়ানডে জেতা সহজ নাও হতে পারে। কারণ শ্রীলঙ্কানদের জন্য এটি বাঁচামরার ম্যাচ। হোয়াইটওয়াশ এড়িয়ে সিরিজ থেকে অন্তত ১০ পয়েন্ট নিয়ে দেশে ফিরতে চাইবেন পেরেরারা। লঙ্কান কোচ মিকি আর্থার সংবাদ সম্মেলনে সে বার্তাই দিয়েছেন, ‘আমাদের ফিল্ডিং ও বোলিং খুব ভালো হচ্ছে। ব্যাটিংটাই শুধু ক্লিক করেনি। আশা করি আজ ব্যাটিংয়েও উন্নতি দেখতে পাব। যাতে করে ১০ পয়েন্ট নিয়ে দেশে ফিরতে পারি।’

টাইগার টিম ম্যানেজমেন্ট এই সিরিজেও পরীক্ষা-নিরীক্ষা অব্যাহত রেখেছে। মিডল অর্ডার এবং লোয়ার মিডল অর্ডারে দেখা গেছে সেটা। আজ ওপেনিংয়েও পরিবর্তন আনা হতে পারে। লিটনের পরিবর্তে ওপেনিংয়ে দেখা যেতে পারে নাঈম শেখকে। গত বছর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অভিষেক করা বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যানের দ্বিতীয় ম্যাচ হবে এটি। সেক্ষেত্রে একদিনের ক্রিকেটে আরও একজন নতুন সঙ্গী পাবেন তামিম। এদিকে, কনকাশন আশঙ্কায় থাকায় পেস বোলিং অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিনকে এ ম্যাচে নাও খেলতে পারে। আইসিসির গাইডলাইন অনুযায়ী এ ধরনের পরিস্থিতিতে ৪৮ ঘণ্টা বিশ্রামে থাকতে বলা হয় সংশ্নিষ্ট ক্রিকেটারকে। সাইফউদ্দিন গতকাল অনুশীলন করলেও বিসিবির মেডিকেল বিভাগ থেকে সুপারিশ করা হয়েছে ম্যাচ না খেলাতে। সেটা হলে তাসকিন ‘অটো চয়েস’। টাইগারদের অনেক প্রত্যাশার ম্যাচে বাধা হতে পারে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাব। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে আজ সকাল থেকেই বৃষ্টি দেখাচ্ছে। তবে দুপুরের দিকে বৃষ্টি না থাকলেও খেলা শুরু হতে দেরি হতে পারে।

 

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
লাইভ রেডিও
সর্বশেষ সংবাদ